স্বদেশ আইটি
অনলাইন মার্কেটিং

অনলাইন মার্কেটিং এর সেরা ৫টি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট

একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা, অনলাইন মার্কেটার ও ব্লগার যাদের কাজ অনলাইন নির্ভর, তাদেরকে অনলাইনের মাধ্যমে নিজের অথবা পণ্য বা সেবার প্রচারণা করার প্রয়োজন হয়। আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় না থাকেন তাহলে এটা নিশ্চিত ভাবে বলা যায়, যেভাবে অনলাইন মার্কেটিং করা প্রয়োজন আপনি সেটা করছেন না।

অনলাইন মার্কেটিং ক্ষেত্রে কোনোটা আপনার কাজে লাগতে পারে আবার কোনোটার মোটেই মূল্য নেই আপনার কাছে। একারণে অনলাইন মার্কেটারদের মনে রাখতে হবে, আপনার পণ্য এবং সেবার প্রচার ও প্রসার বাড়াতে সম্ভাব্য ক্রেতা বা সেবা গ্রহীতাদের কাছে আপনাকে পৌছাতে হবে। আর অনলাইন মার্কেটিং এর মাধ্যমে সম্ভাব্য ক্রেতা ও সেবা গ্রহীতাদের কাছে পৌছানোর জন্য আপনাকে অবশ্যই কিছু কাজ করতে হবে। যেমন-

  • আপনার কোম্পানি ও ব্যবসায়ের জন্য একটি ইউনিক ও সহজে মনে রাখা যায় এমন একটি নাম নির্বাচন করুন।
  • আপনি যেসকল সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্ক গুলোতে সক্রিয় আছেন সেগুলোতে শুধু শুধু লোক না বাড়িয়ে সম্ভাব্য ক্রেতাদের টার্গেট করুন।
  • সোশ্যাল মিডিয়া ক্যাম্পেইনের সময় অবশ্যই সুন্দর ছবি ও আকর্ষণীয় কন্টেন্ট দিতে হবে।
  • আপনার নেটওয়ার্কের উন্নয়নে এতে সম্পৃক্তদের কাছ থেকে ফিডব্যাক নিন ও সেই অনুযায়ী এগিয়ে যান।
  • বেশির ভাগ সোশ্যাল মিডিয়া সাইটে আপনার পেইজ, কমিউনিটি কিংবা গ্রুপের জন্য বিশেষ টুলস রয়েছে। এগুলোর সঠিক ব্যবহার জানতে হবে।

নিচে অনলাইন মার্কেটারদের জন্য অনলাইন মার্কেটিং এর সেরা ৫টি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট সম্পর্কে আলোচনা করা হল। এই সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলোতে প্রচারের মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসাকে সহজেই বর্ধিত বা সম্প্রসারণ করতে পারবেন।

অনলাইন মার্কেটিং এর সেরা ৫টি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট :

১। ফেসবুক (Facebook)
২। গুগল প্লাস (Google +)
৩। টুইটার (Twitter)
৪। লিঙ্কডইন (Linkedin)
৫। পিন্টারেস্ট (Pinterest)

ফেসবুক (Facebook) :

ফেসবুক বিশ্বের এক নাম্বার সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট এ কথা নতুন করে বলার দরকার নেই। ফেসবুকে বর্তমানে মাসিক সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২.২ বিলিয়ন (২০১৮ সালের তথ্য অনুযায়ী)। আর এই বিশাল জনগোষ্ঠির মাঝেই রয়েছে আপনার পণ্য বা সেবার গ্রহীতা কিংবা আপনার ওয়েবসাইট এর সম্ভাব্য ভিজিটর। ফেসবুকে কিভাবে আপনার পণ্য বা সেবার প্রচারণা করবেন সেটি এবার দেখা যাক-

  • ফেসবুকে আপনি আপনার ব্যবসার প্রচারণার জন্য একটি ইউনিক ফেসবুক পেইজ খুঁলতে পারবেন। আর এই পেইজটির নামটি যেনো আপনার ব্যবসায় সম্পর্কিত বা প্রতিষ্ঠানের নামেই হয় সে বিষয়টি খেয়াল করতে হবে।
  • একটি ফেইসবুক পেইজ আপনার ব্যবসায়ের পূর্ণাঙ্গ প্রোফাইল ধারণ করে। এতে যুক্ত থাকা সবাই আপনার ব্যবসা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবে। আপনার পেইজটিকে এমন ভাবে সাজানো উচিত, যাতে সম্ভাব্য ক্রেতারা আগ্রহী হয়।
  • প্রোফাইল ছবি বা থাম্বনেইল হিসেবে আপনার ব্যবসায়ের লোগো ব্যবহার করুন। এটি আপনার ব্যবসায়ের প্রাথমিক পরিচয় বহন করে। এছাড়া কাভার ফটোতেও গুরুত্ব দিতে হবে, এটি অডিয়েন্সের মধ্যে বিশেষ প্রভাব ফেলে।
  • যখন আপনি কেনো পেইজ খুঁলবেন তখন এটিতে আপনার কোম্পানির তথ্য ও যোগাযোগের উপায় গুলো দিয়ে দিবেন। ফলে ক্রেতা বা সেবা গ্রহীতারা সহজেই যোগাযোগ করতে পারবে।
  • আপনার পেইজে একাধিক অ্যাডমিন যুক্ত করুন। যাতে আপনি ব্যস্ত থাকলে অন্য অ্যাডমিনরা কন্টেন্ট বা আর্টিকেল পোস্ট করতে পারে।

গুগল প্লাস (Google +) :

প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলের সামাজিক যোগাযোগ সেবার নাম গুগল প্লাস। গুগল প্লাসে বর্তমানে মাসিক ৩৯৫ মিলিয়ন (২০১৮ সালের তথ্য অনুযায়ী) সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছে। প্রতিনিয়ত এই সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গুগল অথরশিপ হওয়ার এটি অনলাইন মার্কেটিং এর একটি অন্যতম মাধ্যম হয়ে দাড়িয়েছে। এই সাইটে কোনো কিছু শেয়ার করলে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও) এর দিক থেকে অনেক সুবিধা দেয়। গুগল প্লাস থেকে আপনি কি কি সুবিধা পাবেন তা এবার দেখে নেওয়া যাক-

  • এটি ব্যবহারকারীদের ব্র্যান্ড পেইজ তৈরির সুযোগ দেয়।
  • পেইজে কাস্টমাইজড কাভার টেমপ্লেট এবং থাম্বনেইল ব্যবহার করতে পারবেন খুব সহজেই।
  • কনট্যাক্ট, ওয়েবসাইট ও জিওগ্রাফিক্যাল লোকেশনসহ আপনার ব্যবসায়ের বিস্তারিত তথ্য এখানে যুক্ত করতে পারবেন।
  • বিশেষ কীওয়ার্ড ও লোকেশন অনুযায়ী ব্যবহারকারী খুঁজে পাওয়ার সুযোগ দেয়।
  • আপনার সার্কেলে থাকা মানুষ গুলোকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সাজাতে পারবেন এবং পরবর্তীতে এই নির্দিষ্ট ক্যাটাগরির মানুষ গুলোকে উদ্দেশ্য করে বিভিন্ন প্রকার অফার বা কন্টেন্ট শেয়ার করতে পারবেন।
  • আপনার ব্র্যান্ডের জন্য একটি গুগল প্লাস পেইজ ইউনিক ইউআরএল (URL) পেতে পারেন।
  • পেইজে বিভিন্ন ওয়েবমাস্টার ও এপিআই কনসোল সেবা পাবেন, যা আপনার ব্র্যান্ড বা সেবাকে অন্যান্য অনলাইন প্লাটফর্মে ছড়িয়ে দেওয়ার সুযোগ দিবে।

টুইটার (Twitter) :

মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটারে বর্তমানে ৩৩০ মিলিয়ন (২০১৮ সালের তথ্য অনুযায়ী) সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছে। বিশ্বের সেলিব্রেটি, বিশেষ ব্যক্তি, ব্যবসায়ী, প্রতিষ্ঠান এই সাইটটিতে সক্রিয় থাকেন। চলুন এবার দেখে নেওয়া যাক আপনার কি কি কাজে লাগতে পারে এই সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইটটি।

  • টুইটারে আপনি একটি ইউনিক ইউআরএল (URL) পাবেন।
  • এতে আপনার ব্যবসায়ের প্রোফাইল ছবি, হেডার ছবি, ব্যাকগ্রাউন্ড ইত্যাদি দিতে পারবেন আপনার পছন্দ মত।
  • টুইটারে আপনার ব্যবসায়ের ওয়েবসাইটটি যুক্ত করতে পারবেন। এজন্য ব্যবহারকারীরা খুব সহজেই আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করার সুযোগ পাবে।
  • আপনার ব্যবসায়িক ওয়েবসাইটে টুইটার এপিআই উইজেট ব্যবহার করতে পারবেন।
  • হ্যাশট্যাগ, অ্যাট ইত্যাদি সাংকেতিক চিহ্ন ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার কাঙ্খিত ব্যাক্তি বা কমিউনিটির সঙ্গে যোগাযোগের সমন্বয় করতে পারেন।

লিঙ্কডইন (Linkedin) :

মাসিক ২০০ মিলিয়ন (২০১৮ সালের তথ্য অনুযায়ী) ব্যবহারকারী নিয়ে লিঙ্কডইন সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রফেশনাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইট। এখানে আপনার প্রফেশনাল প্রোফাইল ও কমিউনিটি তৈরির সুযোগ রয়েছে। লিঙ্কডইনও আপনার পণ্য বা সেবার জন্য একটি ব্র্যান্ড আইডেন্টিটি তৈরি করার সুবিধা দেয়। এই ওয়েবসাইট থেকে আপনি কি কি পাবেন সেটি এবার দেখে নেওয়া যাক-

  • এখানে আপনার ব্র্যান্ডের জন্য গ্রুপ তৈরি এবং সংযুক্তদের সাথে এটা প্রোমোট করতে পারবেন।
  • তৈরি করা ব্র্যান্ড গ্রুপকে নিজের মতো সাজাতে পারবেন।
  • আপনার গ্রুপে যেসকল ব্যবহারকারী আছে তাদের মাধ্যমেই আপনি নতুন কানেকশনের সাজেশন পাবেন। যার মাধ্যমে আপনার নেটওয়ার্ক আরও বৃদ্ধি পাবে।
  • আপনার ব্যবসায়ের ধরণ অনুযায়ী সম্ভাব্য ক্লায়েন্ট খুঁজতে পারবেন।

পিন্টারেস্ট (Pinterest) :

এটি বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত জনপ্রিয় হওয়া সোশ্যাল বুকমার্কিং সেবার সাইট। বর্তমানে ২০০ মিলিয়ন (২০১৮ সালের তথ্য অনুযায়ী) ব্যবহারকারী রয়েছে এই ওয়েবসাইটটিতে। ছবি ভিত্তিক এই ওয়েবসাইটটি আপনার পণ্য ও সেবার অনলাইন মার্কেটিং করার জন্য সবচেয়ে বেশি কাজে দিবে। এখানে আপনি যে সকল সুবিধা সমূহ পাবেন-

  • এই নেটওয়ার্কে আপনার বিজনেস প্রোফাইল তৈরি করতে পারবেন।
  • এটি আপনার ব্যবসায়ের নাম অনুসারে একটি পার্সোনালাইজড ইউজার নেম দেয়।
  • এখানে আপনার অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া লিংক যুক্ত করতে পারবেন। যেমন- পিন্টারেস্ট এর সঙ্গে আপনার ফেসবুক প্রোফাইল যুক্ত থাকলে আপনি যখনই কোনো ছবি পিন করবেন, তখন এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার ফেসবুকে শেয়ার করে দিবে।
  • আপনার ওয়েবসাইট থাকলে এই সাইট থেকে ডুফলো ব্যাকলিংক পেতে পারেন।

ফয়সাল আহমেদ

খুব সাধারণ একজন মানুষ। নিজের সম্পর্কে বলার তেমন কিছুই নেই। লেখাপড়া শেষ করেছি কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে। ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি ভীষণ আগ্রহ ছিল। তাই শেষ পর্যন্ত প্রযুক্তিকেই বেছে নিয়েছি পথ চলার সঙ্গী হিসেবে। কাজ করি ডিজাইন, ডেভেলপিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে। ভালবাসি আইটি সংক্রান্ত নতুন কিছু শিখতে। আমার শেখা তখনই স্বার্থক যখন সেটা অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারি। আর এই জন্যই প্রতিষ্ঠা করেছি স্বদেশ আইটি।

Add comment

বিভাগ সমূহ