স্বদেশ আইটি
অনলাইনে টাকা ইনকাম

কিভাবে অনলাইনে টাকা ইনকাম করা যায়? জেনে নিন তার নিশ্চিত উপায়

ইন্টারনেটের মাধ্যমে কি কি উপায়ে এবং কিভাবে অনলাইনে টাকা ইনকাম করা যায় এই বিষয়টি ক্রমেই সবার কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। বিগত কয়েক বছর ধরে অনেকেই অনলাইনে নিজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে নিজেকে ও দেশকে স্বনির্ভরতার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু অনলাইনে কাজের ধরণ ও চাহিদা প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল, আবার কিছু কিছু কাজের জন্য বিনিয়োগও করতে হয়।

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার জন্য দক্ষতা থাকা অত্যান্ত জরুরী। বর্তমান সময়ে কিভাবে অনলাইনে টাকা ইনকাম করবেন বা কোথায় কাজ করলে ভাল ফলাফল পাওয়া যাবে তা নিয়ে অনেকের চিন্তার যেন শেষ নেই। আর অনলাইনে কাজের ব্যাপ্তি যেভাবে বিস্তৃত হয়ে উঠছে তাতে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে নিজেকে তৈরী করে নিতে না পারলে ঝরে যাওয়ার সম্ভবনাটা অনেক বেশি। এজন্য যুগোপযোগী কাজের দক্ষতা অর্জন ও প্রশিক্ষণ এর মাধ্যমে নিজেকে তৈরী করে নেওয়াটাই বুদ্ধি মানের কাজ।

মনে রাখতে হবে অনলাইনে একদিকে যেমন কাজের কোন অভাব নেই, অপরদিকে কাজ করার জন্য যোগ্য ব্যক্তিরও চাহিদার শেষ নেই। আবার এটিও সত্যি যে, সবার পক্ষে সব কাজের জন্য নিজেকে তৈরী করা সম্ভব নয়। এজন্য আজকের এই পোষ্টে আপনাদের সাথে এমন কিছু কাজ সম্পর্কে আলোচনা করবো যা আপনারা ঘরে বসে সহজেই করতে পারবেন।

অনলাইনে টাকা ইনকাম :

সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে অনলাইনে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন কাজ। খুলে যাচ্ছে উপার্জনের হাজারও দুয়ার। এর মধ্যে যেকোন একটি হতে পারে আপনার কাংখিত কাজ, যা আপনি ঘরে বসেই করতে পারেন তাও আবার কোন প্রকার বিনিয়োগ ছাড়াই। তবে এর মানে এই নয় যে ইন্টারনেট, কম্পিউটার বা স্মার্টফোন ছাড়াই আপনি এই কাজ গুলো করে ফেলবেন। বিনিয়োগ ছাড়া বলতে এখানে বুঝানো হয়েছে এমন কিছু কাজের কথা যা করতে অনলাইনে কোন প্রকার বিনিয়োগের প্রয়োজন নেই।

তো চলুন এবার পরিচিত হয়ে নেই এমন কিছু কাজের সাথে যার মাধ্যমে আপনি অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন কোন প্রকার বিনিয়োগ ছাড়াই।

অনলাইনে টাকা ইনকাম করার নিশ্চিত উপায় :

১) আর্টিকেল লিখে অনলাইনে টাকা ইনকাম
২) সার্ভে করে অনলাইনে টাকা ইনকাম
৩) ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম
৪) ইউটিউবিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম
৫) এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম
৬) অস্থায়ী কর্মী হিসেবে অনলাইনে টাকা ইনকাম

আর্টিকেল লিখে অনলাইনে টাকা ইনকাম :

আপনি যদি সৃজনশীল মনের মানুষ হয়ে থাকেন বা আপনার যদি লেখার প্রতি আগ্রহ থাকে তবে আপনার এই শখটি হয়ে উঠতে পারে আপনার জন্য আদর্শ একটি পেশা। বর্তমানে অনলাইনে কয়েক হাজার এমন ওয়েবসাইট আছে যারা আপনাকে লেখার বিনিময়ে পারিশ্রমিক প্রদান করবে। আর লেখার মান যদি ভাল হয় তাহলে খুব দ্রুতই আপনি কায়েন্টদের চোখের মণি হয়ে উঠবেন।

আপনি জেনে অবাক হবেন যে, ইন্টারনেটে যেকোন কাজের চেয়ে আর্টিকেল লেখা অনেক বেশি লাভজনক। অনেকে আবার ভাবতে পারেন যে, আমি নতুন বা আমি ইংরেজী পড়ে বুঝতে পারলেও সাজিয়ে লিখতে পারিনা, তাহলে আমি কি করতে পারি? আমি বলবো কোন দরকার নেই ইংরেজীতে লেখার। বর্তমানে গুগল অ্যাডসেন্স বাংলা ভাষার ওয়েবসাইট এপ্রুভ করার ফলে বাংলা ভাষায় যারা আর্টিকেল লিখতে আগ্রহী তাদের জন্য বড় একটি সম্ভাবনার দুয়ার খুলে গেছে।

সার্ভে করে অনলাইনে টাকা ইনকাম :

একটি কোম্পানীর অগ্রগতির জন্য কোম্পানী সম্পর্কে ক্রেতা ও সাধারণ মানুষ কি ভাবছে এটা জানা অনেক বেশি প্রয়োজনীয়। এর ফলে নিজেদের অভ্যন্তরীণ ত্রুটি গুলো একদিকে শুধরে নিয়ে নেওয়া যায়, অপরদিকে এর ফলে তাদের পণ্য বা সেবার বিক্রিও বেড়ে যায় বহু গুনে। এজন্য এসব কোম্পানী গুলো গ্রাহক পর্যায় থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের মতামত পাওয়ার জন্য অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের সার্ভে করিয়ে থাকে।

সার্ভের মূল উদ্দেশ্য হল একটা কোম্পানীর বর্তমান বাজারে প্রতিচ্ছবি কিরুপ তা পরিষ্কার করা। আর আপনি জেনে অবাকই হবেন যে, অনলাইনে এইসব সার্ভে কাজের জন্য কোম্পানী গুলো অনেক অর্থ ব্যয় করে থাকে। আপনিও ইচ্ছা করলে এই ধরনের কোম্পানীর সার্ভে কাজ গুলো করে আয় করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে সাবধান থাকাটা জরুরী। কারণ অনলাইনে এই ধরনের সার্ভে কাজ পাওয়ার মত হাজার হাজার ওয়েবসাইট থাকলেও হাতে গোনা মাত্র কয়েকটি ওয়েবসাইট আছে যারা সঠিক ভাবে পেমেন্ট করে থাকে। তাই সাবধান না হয়ে কাজ করলে লাভের বদলে প্রতারিত হবার সম্ভবনাটাই বেশি থাকবে।

ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম :

বর্তমান সময়ে অন্যের কাজ করে অর্থ উপার্জনের চাইতে নিজের জন্য কাজ করে প্যাসিভ ইনকাম জেনারেট করার প্রবণতা ফ্রীল্যান্সারদের কাছে অনেক বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে আর এক্ষেত্রে ব্লগিং হলো সবচেয়ে আদর্শ উপায়। একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর ব্লগ তৈরী করে সেটিতে নিয়মিত পোষ্ট এবং কন্টেন্ট মার্কেটিং করে ভাল মানের প্যাসিভ ইনকাম জেনারেট করা সম্ভব।

ব্লগিং এর সবচেয়ে ভাল দিকটি হচ্ছে যে, আপনি যদি ঘুমিয়েও থাকেন তাহলেও আপনার ব্লগ থেকে টাকা আসতে থাকবে। তবে ব্লগিং এর জন্য কোন নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর বিশদ জ্ঞান থাকাটা আবশ্যক। কারণ মানুষ যদি আপনার ব্লগে এসে উপকৃত না হয় তাহলে আপনার ব্লগের বাউন্স রেট অনেক বৃদ্ধি পাবে এবং আপনি কাঙ্খিত আয়টি করতে পারবেন না।

এজন্য আগে সিদ্ধান্ত নিন যে, কোন বিষয়ে আপনি ব্লগ তৈরী করতে চান। তারপর একটি ডোমেইন আর হোষ্টিং নিয়ে শুরু করে দিন। কিছু দিন যাওয়ার পর গুগল অ্যাডসেন্স বা যেকোন অ্যাড মিডিয়াতে আবেদন করুন। আর সেটি এপ্রুভ হয়ে যাওয়ার পর আপনার ওয়েবসাইটে অ্যাড বসান। মনে রাখতে হবে ব্লগিং এর ক্ষেত্রে বিজ্ঞাপন পাওয়ার চাইতে ভিজিটর যাতে বেশি উপকৃত হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ যদি আপনার ব্লগে ভিজিটর না আসে বা এসেও চলে যায় তাহলে ব্লগ থেকে আশানুরুপ ফল পাওয়ার চেয়ে হাতাশা পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

ইউটিউবিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম :

অনেকেই ভাবেন যে, ইউটিউবার হওয়ার জন্য অনেক অর্থ খরচ করতে হয়। আসলে এই ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। বর্তমানে প্রায় সবার কাছেই একটি স্মার্টফোন রয়েছে, যার ক্যামেরাও নেহাত খারাপ নয়। মজার ব্যাপারটি হচ্ছে, আজকে যারা সফল ইউটিউবার তাদের অধিকাংশই কোন খরচ না করেই প্রথম পর্যায়ে ইউটিউবিং শুরু করেছে।

তাই একবারে ষ্টুডিও দিয়ে শুরু করার চিন্তা না করে আপনার স্মার্টফোনটি দিয়ে ভিডিও শুট করে আপলোড করুন এবং প্রতিনিয়ত ভিডিও আপলোড করতে থাকুন। ভিডিওতে ভিউ কম আসলে মন খারাপ করবেন না, কারণ এক দিনে কেউ বড় ইউটিউবার হয় না। সময়ের সাথে সাথে আপনার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার এবং ভিউ বাড়তে থাকবে। ইউটিউবে যে শুধু অ্যাড প্রদর্শনেই ইনকাম জেনারেট হয় তা কিন্তু নয়। অ্যাড ছাড়াও ইউটিউব থেকে ইনকাম করার মত হাজারও পদ্ধতি রয়েছে। তাই ধৈয্য সহকারে কাজ করুন, ফল পাবেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম :

এফিলিয়েট মার্কেটিং এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে কোন কোম্পানির পণ্য আপনার ওয়েবসাইটে বা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে কিংবা অনলাইনে মার্কেটিং করার ফলে পণ্যটি যদি বিক্রি হয়, তখন এর থেকে আপনি কমিশন পাবেন। বর্তমানে এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট রয়েছে যাদের পণ্য গুলো একটু চেষ্টা করলেই বিক্রি করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন আপনিও। এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য কয়েকটি উল্লেখযোগ্য ওয়েবসাইট হল-

www.clickbank.com
www.amazon.com
www.aliexpress.com

অস্থায়ী কর্মী হিসেবে অনলাইনে টাকা ইনকাম :

বর্তমানে ঘরে বসে ফ্রীল্যান্সিং করে আয় রোজগার করার অনেক সুযোগ রয়েছে। আপনার যদি ডাটা এন্ট্রি, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, এডমিনিস্ট্রেশন ইত্যাদি কাজে দক্ষতা থাকে, তাহলে ইন্টারনেটে এসব কাজ করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি চাইলে স্থায়ী বা অস্থায়ী কর্মী হিসেবে অনলাইনে আপনার ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে পারেন।

সবশেষে বলা যায় যে, বর্তমান সময়ে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার বেশ কিছু উপায় সম্পর্কে জেনেছেন, এখন কাজ শুরু করুন। এর বাইরেও অনলাইনে টাকা ইনকাম করার অগণিত পথ রয়েছে। কিন্তু সঠিক জ্ঞান ও প্রশিক্ষণের অভাবে আমরা এই অর্থ উপার্জন করতে পারি না।

আবার অনেকের আর্থিক সমস্যা থাকে, যার ফলে প্রাথমিক অবস্থায় ইনকাম না করতে পারলে তারা হতাশার শিকার হন এবং কাজ ছেড়ে দেন। অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে অবশ্যই যে কাজটি শুরু করেছেন তা ধৈর্য্য সহকারে করতে হবে এবং হাল ছেড়ে দিলে চলবে না। কারণ সব কিছুরই ভাল ফলাফল পাওয়ার জন্য একটু সময়ের প্রয়োজন হয়।

আপনি যদি মনে করেন যে, আমি আজকে থেকে কাজ শুরু করলে আগামীকাল থেকেই অর্থ আসা শুরু করবে তাহলে এই অনলাইন জগৎটা আপনার জন্য নয়। তাই আগে আপনি যেটি ভালভাবে করতে পারবেন সেদিকে লক্ষ্য করে কাজ নির্ধারণ করুন। প্রয়োজনে স্বদেশ আইটি থেকে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল ও পোষ্ট দেখে নিতে পারেন।

ফয়সাল আহমেদ

খুব সাধারণ একজন মানুষ। নিজের সম্পর্কে বলার তেমন কিছুই নেই। লেখাপড়া শেষ করেছি কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে। ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি ভীষণ আগ্রহ ছিল। তাই শেষ পর্যন্ত প্রযুক্তিকেই বেছে নিয়েছি পথ চলার সঙ্গী হিসেবে। কাজ করি ডিজাইন, ডেভেলপিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে। ভালবাসি আইটি সংক্রান্ত নতুন কিছু শিখতে। আমার শেখা তখনই স্বার্থক যখন সেটা অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারি। আর এই জন্যই প্রতিষ্ঠা করেছি স্বদেশ আইটি।

Add comment

বিভাগ সমূহ