স্বদেশ আইটি
ফেসবুক থেকে আয়

ফেসবুক থেকে আয় করার সহজ ৬টি উপায় সম্পর্কে জেনে নিন

শুধু শুধু ফেসবুকে পোস্ট করে, লাইক ও মন্তব্য করে কি লাভ? এর চেয়ে ফেসবুককে কাজে লাগিয়ে কিছু ইনকাম বা আয় করার চিন্তা করতে পারেন। এখন অনেকেই ফেসবুক পেজ, গ্রুপ তৈরি করে ফেসবুক থেকে আয় করছে। আপনিও চাইলে ফেসবুক থেকে আয় করতে পারেন। আগে শুধুমাত্র পেজ তৈরি করে লাইক বাড়িয়ে তা বিক্রি করে দিলেই ফেসবুক থেকে আয় বা ইনকাম করা যেতো। কিন্তু এখন বিভিন্ন উপায়ে ফেসবুক থেকে আয় বা ইনকাম করা যায়। নিচে ফেসবুক থেকে আয় করার সহজ ৬টি উপায় আলোচনা করা হল-

ফেসবুক থেকে আয় করার সহজ ৬টি উপায় :

১। ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল
২। পেজ বেচাকেনা
৩। ফেসবুক ভিডিও
৪। ফেসবুকে দোকান
৫। ফ্রিল্যান্সিং
৬। গ্রুপ তৈরি

ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল :

ফেসবুক থেকে বৈধভাবে আয় করার এখনকার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল কাজে লাগিয়ে ফেসবুক থেকে আয় করা। যারা লেখালেখি করতে ভালবাসেন তাদের একটি ফেসবুক পেজ থাকতে হবে। আর তাতে সক্রিয় লাইক এবং পেজ কাজে লাগিয়ে আয় করার সুযোগ দিয়েছে ফেসবুক। দ্রুত খবর পড়ার সুবিধা দিতে ফেসবুক নিয়ে এসেছে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল। এতে একটি খবরের সাথে বজ্রর মতো চিহ্ন দেওয়া থাকে সে শিরোনাম বা লিংকে শুধুমাত একটা ক্লিক করলেই বজ্র গতিতে ফেসবুকেই পেয়ে যান খবরটি।

আপনার ওয়েব সাইটে করা পোস্টটি যখন আপনি পেজে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল হিসেবে পোস্ট করবেন তখন সেটি পড়ার জন্য ব্যবহারকারীদের এমবি খরচ করে নতুন কোনো ট্যাবে বা ব্রাউজারে যেতে হবে না। তবে হ্যাঁ, ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল শুধুমাত্র স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরাই দেখতে পারবেন। বিশ্বের বড় বড় সংবাদ মাধ্যম এরই মধ্যে ফেসবুকের ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল ফিচারটির সাথে যুক্ত হয়েছে।

মূলত ফেসবুক তাদের সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ব্যবহারকারীদের আরো বেশি সময় ধরে রাখা, দ্রুত সাইটে প্রবেশ বা লোডিং টাইম কমানো, নিউজ সাইট গুলো আরো বেশি ফেসবুক মুখী হওয়া, বিজ্ঞাপনদাতাদের টার্গেট পিপল ধরা এবং ওয়েবসাইটের মালিকদের সাথে রেভিনিউ শেয়ার করার জন্য এই ফিচার চালু করেছে ফেসবুক।

ফেসবুক থেকে আয় এর টাকা ১০০ ডলার হলেই চলে আসবে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে। বর্তমানে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে জেলা শহরের ছোট ও মাঝারি অনলাইন সংবাদ মাধ্যম গুলো প্রতিনিয়ত এই পদ্ধতির সাথে সংযুক্ত হচ্ছে। ফলে ফেসবুক থেকে আয় করা টাকায় অফিস পরিচালনা এবং কর্মীদের বেতন দিয়েও এখন অতিরিক্ত টাকা আয় করা যাচ্ছে। কিভাবে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল পোস্ট করবেন তা জানতে এই লিংকে ক্লিক করে জেনে নিন।

পেজ বেচাকেনা :

এটা কোন বৈধ পথ নয়। আপনাকে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করে তাতে লাইক বাড়িয়ে কোন প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করতে হবে। ফেসবুক এই প্রক্রিয়া সমর্থন করেনা। তবে, এখনো এর চাহিদা রয়েছে। ১০০০ লাইক যুক্ত পেজ ২০০০ টাকা থেকে দাম শুরু হতে দেখা যায়। প্রয়োজনে অনেকেই পেজ কিনে তাতে তাদের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস প্রমোট করে। তাই পেজ তৈরি করে ফেসবুক থেকে আয় করতে পারেন। ফেসবুকে পেজ তৈরি করা খুবই সহজ। ফেসবুকে পেজ তৈরি করার জন্য আপনার ফেসবুক আইডি লগইন করার পর এই লিংকে ক্লিক করুন।

এরপর Business or Brand এবং Community or Public Figure নামে দুটি অপশন পাবেন। আপনি যদি ব্যবসার জন্য পেজ খুলতে চান, তাহলে প্রথমটাতে ক্লিক করে পরবর্তী পেজে আপনার পছন্দমত নাম দিয়ে পেজ খুলে নিন। এরপর পেজে প্রয়োজনীয় তথ্য যুক্ত করতে হবে এবং পেজ নিয়মিত হালনাগদ করতে হবে। যেসব পোস্ট মানুষ বেশি পড়ে সেই জাতীয় পোস্ট দিতে হবে। পাশাপাশি লাইক ও এনগেজমেন্ট বাড়াতে হবে। এবার আপনার পেজে বিভিন্ন লিংক শেয়ার ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ফেসবুক থেকে আয় করতে পারবেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পোস্টের জন্য অর্থ নিয়েও ফেসবুক থেকে আয় করতে পারেন। মনে রাখবেন, এটা আপনার ব্যবসা।

ফেসবুক ভিডিও থেকে আয় :

মনে রাখবেন, ফেসবুক তার অ্যালগরিদম আপগ্রেড করেছে। এখন ভিডিওর যুগ, ফেসবুক ভিডিওর প্রতি বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। চেষ্টা করুন ভিডিও নির্ভর পেজ তৈরি করতে। ফেসবুক ওয়াচ নামের একটি সেবা চালু হচ্ছে। ভবিষ্যতে ফেসবুকের ভিডিও থেকে আয় করতে পারবেন। বর্তমানে ফেসবুক লাইভ থেকে আয় করার সুযোগও রয়েছে।

ফেসবুকে দোকান :

যাদের দোকান নিয়ে ব্যবসা করার সামর্থ্য, তারা ফেসবুকে দোকান খুলে বিক্রি করতে পারেন অনেক কিছু। অনেকেই এখন ফেসবুক লাইভে এসে পোশাক, গয়না, কসমেটিক ইত্যাদি বিক্রি করছে। ভবিষ্যতে অন্যান্য পণ্যও বিক্রি করা যাবে। এই ব্যবসাকে এফ কমার্স বলে। পোশাক, কসমেটিক, খাবার থেকে শুরু করে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ফেসবুক শপে বিক্রি করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার পণ্যটি বিক্রি করার জন্য ফেসুবকে শপে পোস্ট দিন। অর্ডার পেলে তা সরবারহ করুন। ব্যবসা জমে যেতে বেশি দেরি হবে না। পেজে যত লাইক থাকবে বা যত বেশি সক্রিয়তা থাকবে ব্যবসা ততো ভাল হবে।

ফ্রিল্যান্সিং :

আপনি কি ভাল কনটেন্ট লেখেন? বা গ্রাফিক ডিজাইনের ভাল কাজ পারেন? কিংবা আপনি একজন ওয়েব ডিজাইনার বা ডিজিটাল মার্কেটার। তাহলে আপনার ফেসবুক পেজটিই বড় বিজ্ঞাপন হয়ে উঠতে পারে। যারা ফাইভার, আপওয়ার্ক বা বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করেন তাদের প্রমোশনের জন্য ফেসবুক দারুন প্ল্যাটফর্ম। এখানে মানুষকে কাজ দেখিয়ে অর্ডার নিতে পারেন।

গ্রুপ তৈরি করে :

ফেসবুকে গ্রুপ তৈরি করেও ফেসবুক থেকে আয় করতে পারেন। আপনার কি ফেসবুক গ্রুপ আছে? তাহলে ফেসবুক আপনাকে টাকা আায়ের সুযোগ দেবে। ফেসবুক সাবসক্রিপশন মডেল আনছে। বড় বড় ফেসবুক গ্রুপ গুলোতে সদস্য হতে গেলে গ্রুপ অ্যাডমিনরা ৪ দশমিক ৯৯ ডলার থেকে ২৯.৯৯ ডলার পর্যন্ত সাবস্ক্রিপশন ফি চার্জ করতে পারবে। এর আগে সব সময়ই ফেসবুক গ্রুপ গুলো ফ্রি ছিলো। কিন্তু অদূর ভবিষ্যতে অ্যাডমিনরা প্রিমিয়াম গ্রুপ চালুর সুবিধা পেতে পারেন।

এতে করে প্রিমিয়াম গ্রুপের সদস্যরা অ্যাডমিনদের কাছ থেকে আরো মান সম্পন্ন কন্টেন্ট পাবেন। তবে অর্থের বিনিময়ে অনেকেই এই সুবিধাটি নিতে চাইবে না। ফলে গ্রুপ গুলো থেকে অনেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে পারেন। লাইফ স্টাইল ব্লগার সারাহ মুলারের গ্রুপে ঢুকতে হলে ১৪ দশমিক ৯৯ ডলার খরচ করতে হবে। কলেজ কাউন্সিলরের কাছে ভর্তি সংক্রান্ত তথ্য পেতে কোন গ্রুপে যোগ দিতে চাইলে ব্যয় করতে হবে ২৯ দশমিক ৯৯ ডলার।

এর বাইরেও ফেসুবকের পেজ কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন ভাবে ফেসবুক থেকে আয় করার সুযোগ রয়েছে। আমরা পরবর্তীতে সেগুলো নিয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করবো। আর আপনাদের কোন আইডিয়া থাকলে মন্তব্যে তা জানান। সবাইকে ধন্যবাদ

ফয়সাল আহমেদ

খুব সাধারণ একজন মানুষ। নিজের সম্পর্কে বলার তেমন কিছুই নেই। লেখাপড়া শেষ করেছি কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে। ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি ভীষণ আগ্রহ ছিল। তাই শেষ পর্যন্ত প্রযুক্তিকেই বেছে নিয়েছি পথ চলার সঙ্গী হিসেবে। কাজ করি ডিজাইন, ডেভেলপিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে। ভালবাসি আইটি সংক্রান্ত নতুন কিছু শিখতে। আমার শেখা তখনই স্বার্থক যখন সেটা অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারি। আর এই জন্যই প্রতিষ্ঠা করেছি স্বদেশ আইটি।

1 comment

বিভাগ সমূহ